ঘরে বসেই করুন হেয়ার ট্রিটমেন্ট

ঘরে বসেই করুন হেয়ার ট্রিটমেন্ট
ঘরে বসেই করুন হেয়ার ট্রিটমেন্ট

ঝলমলে সুন্দর সস্বাস্থ্যজ্বল চুল কে না পছন্দ করে। সুন্দর ঝলমলে চুল পাবার জন্য আমরা কত কিছু না করে থাকি! সেই সুন্দর চুল যখন বিভিন্ন কারণে পাতলা আর মলিন হয়ে পারে তখন আপনার সুন্দর মুখটাও মলিন হয়ে যাই। সাধারণত হরমোনের পরিবর্তন, জেনেটিক কারণ বা পুষ্টির অভাবে চুল পড়ার সমস্যা হয় । চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় একে অ্যালোপেসিয়া বলে। যদি ঘরে বসে প্রাকৃতিক ভাবেই চুল গজানো যায় তাহলে অনেক টাকা খরচ করে হেয়ার ট্রিটমেন্ট কেন করবেন? আসুন জানি ঘরোয়া হেয়ার ট্রিটমেন্টের কিছু সহজ উপায়।

অয়েল ম্যাসাজঃ অয়েল ম্যাসাজ চুলের বৃদ্ধির জন্য সবচেয়ে অপরিহার্য। নারিকেল তেল বা আমন্ড তেল কুসুম গরম করে ম্যাসাজ করলে চুল বৃদ্ধি পায় এবং চুল শক্তিশালীও হয়।

গ্রিনটি ও ডিমের প্যাকঃ গ্রিনটি ও ডিমের প্যাক ব্যবহার করলে চুল পড়া বন্ধের সাথে চুল মসৃণ ও উজ্জ্বল হয়। ডিমের কুসুমের সাথে ২ টেবিল চামচ গরম গ্রিনটি মেশান যতক্ষণ পর্যন্ত না একটি ঘন মিশ্রণ তৈরি হয়। আপনি চাইলে ডিমের সাদা অংশও ব্যাবহার করতে পারেন। মিশ্রণটি মাথায় দিয়ে ৩০-৪০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। গ্রিনটির অ্যান্টি অক্সিডেন্ট চুল পড়া বন্ধ করতে সাহায্য করবে এবং ডিম চুলকে মসৃণ করবে।

মেহেদি, আমলা, শিকাকাই ও ব্রাহ্মী প্যাকঃ হেনা প্যাক যাতে মেহেদির সাথে আরও আছে আমলা, শিকাকাই ও ব্রাহ্মী। এই প্যাক এর সাথে দই মিশিয়ে চুলে ব্যবহার করুন অথবা মেহেদি পাতার সাথে গোলাপ ফুল, মেথি মিশিয়ে চুলে ব্যবহার করুন।

খুব শক্ত করে চুল বাঁধবেন নাঃ চুল খুব শক্ত করে বাঁধবেন না কখনোই । এতে চুলের ফলিকল নষ্ট হয়। গবেষণাই দেখা যাই চুলের উপর বেশি চাপ পড়লে চুল পড়া বৃদ্ধি পায় এবং নতুন চুলের বৃদ্ধি বাঁধা প্রাপ্ত হয়। তাই যতটা সম্ভব চুল খোলা রাখার চেষ্টা করুন।

পুষ্টিকর খাবার খানঃ চুল পড়া বন্ধ করতে পুষ্টিকর খাবার খাওয়া প্রয়োজন। আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খেলে চুল পড়া বন্ধ হয় এবং চুলের উৎপাদন বৃদ্ধি পায়। ভিটামিন ও খনিজ উপাদান সমৃদ্ধ খাবার এবং ওমেগা ৩ ও ওমেগা ৬ ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ খাদ্য হেয়ার ফলিকল কে পুষ্টি প্রদান করে চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

চুল পড়ার জন্য মানসিক চাপ অনেকাংশে দায়ী। যদি আপনি মানসিক সমস্যায় ভোগেন তাহলে তা থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করুন। পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ ও নিয়মিত ব্যায়াম করুন তাতে আপনার শরীরের পুষ্টির ভারসাম্য বজায় থাকবে, চাপ কম হবে এবং চুলের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে ও চুল শক্তিশালী হবে।

(Visited 165 times, 1 visits today)
Share :
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Be the First to Comment!

Notify of
avatar