সংসারের প্রয়োজনীয় ২১টি সাধারণ উপকরণের অসামান্য ব্যবহার

২১টি সাধারণ উপকরণের অসামান্য ব্যবহার
২১টি সাধারণ উপকরণের অসামান্য ব্যবহার

সাধারন জিনিসও অনেক অসাধারন কাজ করে। এমন কিছু জিনিস আছে যা আমরা ফেলনা ভাবি, আসলে জিনিসগুলো মোটেও ফেলনা নয় বরং এর অল্প একটু ব্যবহারের ফলে আমাদের প্রতিদিনের কাজ আরো সহজ হয়ে ওঠে। সংসারের জিনিসপত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে এবং নষ্ট হওয়া থেকে বাঁচতে, এসব উপকরণের সামান্য ব্যবহার আপনার সময় যেমন বাঁচাবে তেমনি আসবাবপত্র গুলো হবে নতুনের মতন। আসুন ব্যবহারগুলো জেনে নেইঃ-

১. কর্পূর ব্যবহার

কয়েক দানা কর্পূর আধাকাপ পানিতে গুলিয়ে খাটের নিচে রেখে দিন মশা পালাবে। ভালোভাবে মুখ বন্ধ করা শিশিতে কর্পূর ভরে যন্ত্রপাতির বাক্সে রাখুন যন্ত্রপাতিতে দীর্ঘদিনেও মরিচা পড়বে না।

২. গন্ধ দূর করতে ম্যাচের কাঠি

দীর্ঘদিন দরজা-জানালা বন্ধ থাকলে ঘর খুললে একটা ভ্যাপসা গন্ধ বের হয়। এক্ষেত্রে ২-৩ টা ম্যাচের কাঠি জ্বালান, নিমেষেই ঘর থেকে গন্ধ দূর হয়ে যাবে।

৩. লেবুর রস

চামড়ার ব্যাগ বা স্যুটকেসের উজ্জ্বলতা বাড়াতে এক টুকরো ফ্লানেল বা কম্বলের কাপড়ে পাতিলেবুর রস নিয়ে ঘষুন পার্থক্যটা নিজেই বুঝতে পারবেন।

৪. চা পাতাই ফোটানো পানি

পুরানো কাঠের আসবাবপত্রে ময়লা জমে। এই আসবাবপত্র থেকে ময়লা আস্তর দূর করতে ও ঝকঝকে রাখতে ৩কাপ পানিতে চা পাতা দিয়ে ফোটানো পানি ঠান্ডা করে পালিশ করতে পারেন।

৫. ডিটারজেন্টের সাথে লেবুর রস

বাথরুমের টাইলসে জমে থাকা ময়লা দূর করতে ডিটারজেন্টের সাথে লেবুর রস ও ১চামচ ফিনাইল মিশিয়ে বাথরুমের টাইলস ঘষে পরিস্কার করুন। দেখুন ঝকঝকে হয়ে উঠবে।

৬. ভিনেগার

এক ফোঁটা ভিনেগার দিয়ে চশমার কাঁচ ভালোভাবে পালিশ করুন কাচ ঝকঝকে পরিষ্কার হবে।

৭. গরম পানিতে রুমাল ভিজিয়ে

যদি বোতলের ছিপি শক্ত হয়ে আটকে যায়, তবে একটি রুমাল গরম পানিতে ভিজিয়ে হালকা ভাবে চিপে নিয়ে বোতলের ছিপির নিচে জড়িয়ে রাখুন। কিছুক্ষণ পরেই ছিপিটি খুলে আসবে।

৮. অ্যাকোরিয়ামের পানি

অ্যাকোরিয়ামের পানি না ফেলে গাছের গোড়ায় দিন গাছের সার হিসেবে ভাল কাজ করে।

৯. পানি কালার নেলপালিশ

মাটির দ্রব্য পরিষ্কার রাখতে সাধারণ রঙের নেলপালিশ লাগান। রং ঝকঝকে থাকবে আর জিনিসটিও নোংরা হবে না। আর গহনার তীক্ষ্ণ বা ধারালো প্রান্তে নেলপালিশ লাগান এতে খোঁচা লেগে পোশাকের ক্ষতি হবে না।

১০. ফ্রিজের দাগ তুলতে টুথপেস্ট

দীর্ঘদিন ব্যবহারে ফ্রিজের গায়ে দাগ বসে যাই এই দাগ উঠাতে স্পঞ্জে টুথপেস্ট লাগিয়ে ভালোভাবে ঘষুন, দাগ উঠে যাবে।

১১. গ্লিসারিন

এক বালতি পানিতে আধা চামচ গ্লিসারিন মিশিয়ে নিন। উলের পোশাক ধোওয়ার পর এতে ডুবিয়ে নিয়ে শুকাতে দিন। এতে করে পোশাকের নরম ভাব বজায় থাকবে এবং জানালার কাঁচ, কাঠ বা স্টিলের টেবিলের দাগ উঠাতে ফ্লানেলের টুকরোতে গ্লিসারিন ভিজিয়ে দাগের অংশে ঘষুন। দাগ চলে যাবে।

১২. লবণ ছিটিয়ে

গরমে পিপড়ে, মাছির উপদ্রব বাড়ে মেঝেতে লবণ ছিটিয়ে পানি দিয়ে ভালোভাবে মুছে ফেলুন। পিঁপড়া, মাছির উপদ্রব কমে যাবে।

১৩. তোয়ালে

শিশুকে গোসলের আগে বাথরুমের মেঝেতে তোয়ালে বিছিয়ে দিন। এতে বাচ্চা পড়ে যাবে না, আবার বসেও আরাম পাবে।

১৪. সেলোটেপ

সেলোটেপের মুখ খুঁজে না পেলে ১০ মিনিটের জন্য ফ্রিজে ঢুকিয়ে রাখুন। সেলোটেপের রিলটা খুলে আসবে।

১৫. স্টিকার তুলতে

স্টিলের পাত্রের স্টিকার তুলতে, স্টিকার লাগানো অংশের উল্টোপিঠটা গরম করে নিন। এরপর স্টিকার খুব সহজেই উঠে আসবে।

১৬. টুথপেস্ট, লবন আর রিঠা

সোনা-রূপার গয়না টুথপেস্ট দিয়ে ঘষুন পানি দেয়ার দরকার নেই। শুকনো কাপড় দিয়ে পেস্ট মুছে ফেলুন দেখুন গয়না আরো ঝকঝক করে উঠবে এবং পানির সাথে লবণ আর রিঠা দিয়ে তাতে রূপার গয়না পনেরো মিনিট ফোটালে রূপোর স্বাভাবিক রং ফিরে আসে।

১৭. চাল ধোয়া পানি

চাল ধোয়া পানিতে স্টিল ও কাঁচের বাসন কিছুক্ষণ ডুবিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন বাসন চকচক করবে।

১৮. আলুর খোসা

রান্নার সময় হাতে হলুদের দাগ লেগেছে? আলুর খোসা হাতে ঘষে হাত ধুয়ে নিলে হলুদের দাগ আর থাকবে না।

১৯. ডিমের খোসা

ঘরের কোনো জেদি দাগ বা টয়লেটের প্যানের নোংরা দাগ তুলতে ডিমের খোসার তুলনা নাই। এই খোসা ভেঙ্গে গুঁড়ো করে আপনার ঘরের মেঝে বা টয়লেটের প্যান পরিষ্কারের কাজে ব্যবহার করুন।

২০. স্পিরিট, কেরোসিন ও চকের গুঁড়া

চকের গুঁড়োর সাথে পানি আর স্পিরিট বা কেরোসিন মিশিয়ে দাগ ধরা জানালা বা দরজার কাঁচের ওপর মাখুন। শুকিয়ে গেলে খবরের কাগজ দিয়ে ঘষে মুছে ফেলুন। দেখবেন কাঁচ ঝকঝক করছে।

২১. ইউক্যালিপটাস তেল

১ বালতি পানিতে ২ টেবিল চামচ ইউক্যালিপটাস তেল মিশিয়ে ধুয়ে নেয়া গরম পোশাক বা সিল্কের কাপড় পানিতে ডুবিয়ে নিয়ে শুকাতে দিন। এতে পোশাক পোকায় কাটার ভয় থাকবে আর পোশাকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।

(Visited 332 times, 1 visits today)
Share :
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Be the First to Comment!

Notify of
avatar